দেশের বিভিন্ন স্থানে যুব মজলিসের নারী নির্যাতন বিরোধী বিক্ষোভ মিছিল। দেশে “আওয়ামী জাহেলিয়াত” চলছে -মাওলানা আবুল হাসানাত জালালী

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে নারীর উপর বর্বরোচিত পাশবিক নির্যাতনের প্রতিবাদ ও শাস্তির দাবিতে দেশের বিভিন্ন জেলায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ খেলাফত যুব মজলিস।
সমাবেশে বক্তাগণ দেশব্যাপী গুম-খুন, ধর্ষণ ও নারী নিপিড়নের তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ জানিয়ে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান। অন্যথায় আরো বৃহত্তর আন্দোলন করা হবে বলে হুশিয়ারী উচ্চারণ করেন।
#ঢাকা_মহানগর আয়োজিত বিক্ষোভ মিছিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি পরিষদ সদস্য মাওলানা আবুল হাসানাত জালালী বলেন, নোয়াখলিতে নারীর উপর পাশবিকতার যে চিত্র সামনে এসেছে তা আইয়ামে জাহেলিয়াতকেও হার মানিয়েছে। দেশে এখন “আওয়ামী জাহেলিয়াত” চলছে। বিগত বারো বছরে নারী উন্নয়নের বুলি আওড়ানো আওয়ামীলীগ; যুবলীগ ও ছাত্রলীগের মাধ্যমে দেশকে ধর্ষনের অভয়ারণ্যে পরিনত করেছে। একেরপর এক ধর্ষণের ঘটনা ঘটছে কিন্তু কোনটিরই দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করা হয়নি বরং মজনু মিয়ার মত নাটক সাজানো হয়েছে। এসময় তিনি ধর্ষণকামী যুবলীগ ও ছাত্রলীগের রাজনীতি নিষিদ্ধের দাবী জানান। সমাবেশে বক্তারা ২৪ ঘন্টার মধ্যে দোষীদের গ্রেপ্তার করে দ্রুত বিচার ট্রাইবুনালের মাধ্যমে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিতের প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানান।
মহানগর সভাপতি মাওলানা রাকীবুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও বাইতুল মাল সম্পাদক মাওলানা আব্দুল্লাহ আশরাফের পরিচালনায় আরো বক্তব্য পেশ করেন কেন্দ্রীয় সংগঠন বিভাগের সম্পাদক মাওলানা ফজলুর রহমান, বাইতুল মাল বিভাগের সম্পাদক মাওলানা জহিরুল ইসলাম, সমাজকল্যাণ বিভাগের সম্পাদক মাওলানা শরীফ হুসাইন, মহানগরীর মজলিসে আমেলা সদস্য মাওলানা রুহুল আমীন, মুর্শিদ সিদ্দিকী, হাশমতুল্লাহ প্রমুখ।
আজকে বাদ আছর ময়মনসিংহ বড় মসজিদ চত্বরে বিক্ষোভ মিছিল পূর্ব সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন মহানগর সভাপতি মুফতি রফিকুল ইসলাম, পরিচালনা করেন মহানগর দায়িত্বশীল মাওলানা আনোয়ার হোসেন, প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন জেলা সভাপতি মাওলানা রেজাউল কীম, বক্তব্য রাখেন জেলা বাইতুল মাল সম্পাদক লৎফর রহমান, জেলা দফতর সম্পাদক রুহুল আমিন, ছাত্র মজলিস জেলা সহ সভাপতি আতহার আলী।
প্রধান অতিথি বক্তব্যে বলেন যেই সমাজ মা-বোনদের নিরাপত্তা দিতে পারেনা ঐ সমাজ ভেংগে গুড়িয়ে দিতে হবে।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আর কয়জন মা-বোন ধর্ষিত হলে ধর্ষিতাদের আত্মচিৎকার আপনার কানে পৌছবে।
অনতিবিলম্বে ধর্ষকদের বিরুদ্ধে ফাঁসির আইন পাশ করুন।
সভাপতি বক্তব্যে বলেন যদি ধর্ষকদের বিরুদ্ধে আইন পাশ না করাহয় সারা দেশ অচল করে দেওয়া হবে।
বক্তব্য শেষে বড় মসজিদ চত্বর থেকে মিছিল শুরু হয়ে বিভিন্ন সরক পদিক্ষন করে কৃষ্ণচূড়া চত্বরে দোয়ার মাধ্যমে সমাপ্ত করা হয়।
এছাড়াও ত্রিশাল জোন সভাপতি মাওলানা হাবিবুর রহমানের ত্রিশালে যুব মজলিসের বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্টিত হয়
বক্তব্য রাখেন, মাওলানা নাসির উদ্দিন, মাওলানা শরীফুল ইসলাম প্রমূখ
নেত্রকোনা জেলা সভাপতি মাওলানা মাজহারুল ইসলামের নেতৃতে নেত্রকোনায় বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, মাওলানা আসাদুর রহমান আকন্দ খেলাফত মজলিসের সম্পাদক নেত্রকোনা জেলা‌ দায়িত্বশীল মাওলানা সাঈদুর রহমান মাওলানা মুস্তাফিজুর রহমান মুফতী হিফজুর রহমান মাওলানা নুরুজ্জামান মাওলানা আবু ছালেহ।
মিছিলটি বড়বাজার জামে মসজিদ থেকে শুরু হয়ে শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে জামিয়া মিফতাহুল উলুম মাদ্রাসার ফটকে শেষ হয়।
নরসিংদীর জেলার বাজিরমোড় থেকে ইনডেক্স প্লাজা পর্যন্ত বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন জেলা সভাপতি মাওঃ মামুনুর রশীদ, প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আনোয়ার মাহমুদ, আরো উপস্থিত ছিলেন, জেলা মজলিসে আমেলা সদস্য মাওঃ ফখরুল ইসলাম, মাওঃ ইমরান হোসাইন, হাফেজ মোঃ ছানাউল্লাহ, মাওঃ মুস্তাক আহমদ।
বগুড়ায় নারী নির্যাতনের প্রতিবাদে মানব বন্ধন অনুষ্ঠিত
জেলা যুব মজলিসের আয়োজনে বগুড়ার কলোনিতে নোয়াখালিতে নারী নির্যাতনের প্রতিবাদে এবং ধর্ষক নরপশুদের দ্রুত কঠিন বিচারের আওতায় আনার দাবিতে একটি মানব বন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।
মুফতি মামুন রহমানির সভাপতিত্বে মানব বন্ধনে বক্তব্য রাখেন বিশিস্ট মিডিয়া ব্যাক্তি সালাহউদ্দীন মাসউদ, জেলা দায়িত্বশীল মাওঃ মাহফুজুল ইসলাম, হাবিবুল্লাহ, আরিফুল ইসলাম, কাওছার হামিদ, মুফতি আবু ওবায়েদ ও মোস্তফা বিন হাবিব।
ছাত্র মজলিসের দায়িত্বশীল আতাউর রহমান, আব্দুল্লাহ তাকি, আব্দুল্লাহ মারুফ প্রমুখ
বক্তারা দেশব্যাপী ঘটমান ধারাবাহিক ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন একটি স্বাধীন দেশে এভাবে অন্যায়, অবিচার, জুলুম নির্যাতন ও ধর্ষণ চলতে পারে না। এবাবে চলতে থাকলে একসময় জনগন এসব ধর্ষকদের প্রকাশ্যে গণধোলাই দিতে থাকবে এমনকি তাদের বাড়ীঘরে জালাও পোড়াও শুরু হতে পারে।
এসব ঘটণার দ্রুত বিচার না হলে আল্লামা মামুনুল হকের নির্দেশে তাওহিদি জনতা পথে নামলে সরকারের গদি টিকে রাখাও মুশকিল হয়ে পড়বে বলে বক্তারা হুশিয়ারী উচ্চারণ করেন।
নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে গৃহবধূর উপর পাশবিক নির্যাতনের প্রতিবাদে ও ধর্ষক- নির্যাতনকারীদের শাস্তির দাবিতে সুনামগঞ্জ জেলা যুব মজলিসের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।
আজ ০৫/১০/২০ ইং বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার শক্তিয়ারখলা বাজারে এই মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলের আয়োজন করা হয়।
এতে উপস্থিত ছিলেন যুব মজলিস সুনামগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি মাওলানা সাইদুর রহমান সাঈদ, দপ্তর সম্পাদক হাফিজ আনোয়ার হোসাইন, নির্বাহী সদস্য মাওলানা বশির উদ্দিন, আজহারুল ইসলাম,
প্রতিবাদ সভায় বক্তাগণ নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে বখাটে ছেলেদের কর্তৃক একজন গৃহবধূকে উলঙ্গ করে নির্যাতন ও ভিডিও প্রকাশের সাথে জড়িতদের প্রকাশ্যে দ্রুত বিচারের আওতায় বিচার করার দাবি জানান।
দেশে চলমান ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন রোধে সরকারের নীরব ভূমিকাকে দায়ী করে ধর্ষক ও নারী নির্যাতনকারীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে ফাঁসি দেওয়ার জোর দাবি জানান।
সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন, মাওলানা তাজুল ইসলাম, মাওলানা নাসির উদ্দিন, মোঃ আব্দুল হাই প্রমুখ।
ফেনীতে যুব মজলিসের মানববন্ধন
নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ করে গণধর্ষণ ও লোমহর্ষক নির্যাতনের প্রতিবাদে এবং দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে বাংলাদেশ খেলাফত যুব মজলিস ফেনী শহর শাখার উদ্যোগে আজ০৫ অক্টোবর ২০ইং সকাল ১১টায় শহীদ মিনার চত্বর ট্রাংক রোড, ফেনীতে মানববন্ধন পালন করা হয়।
গাজীপুর জেলা সভাপতি মাওলনা তোফাজ্জল হুসাইনের সভাপতিত্বে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্টিত হয়।গাজীপুর চৌরাস্তা কেন্দ্রীয় মসজিদের সামনে আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সহসভাপতি মাওলানা হাফেজ নিজাম উদ্দিন, জেলা মজলিসে আমেলার সদস্য মাওলানা আবদুল মালেক, মাওলানা বেলাল মাহমুদি,মুফতি ফরিদুজ্জান মুখতারী, মাওলানা মুরশেদ কামাল, মাওলানা জুনায়েদ হাবিব, মুহাম্মাদ আবু বকর সিদ্দীক প্রমুখ।
কালিকৈরে উপজেলা সভাপতি আনোয়ার হোসেন এর নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, মাওলানা আশরাফ, বিশেষ অতিথি মোহ্মমাদ সোহেল। মিছিলটি মাহমুদ নগর মাদ্রাসা থেকে শুরু হয়ে চন্দ্রা গোলচত্বরে এসে শেষ হয়।
এসময় বক্তারা বলেন, ধর্ষণকারীকে শুধু গ্রেফতার করলে হবে না জনতার সামনে প্রকাশ্যে তাকে ফাঁসিতে ঝুলাতে হবে।
তারা বলেন, মাথার কাফনের কাপড় বেঁধে এদেশের মা-বোনদের সম্মান বাঁচানোর জন্য বাংলাদেশের 16 কোটি জনগণ জীবন দিতে প্রস্তুত আছে।
এছাড়াও নারায়নগঞ্জ সহ বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।
শেয়ার করুন
Scroll to Top